Share

ফটোনিউজবিডি ডেস্ক:

রাশিয়ার সামরিক বাহিনী ইউক্রেনে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে। এতে ১৪ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ৯৭ জন। ক্রিমিয়াকে রাশিয়ার সঙ্গে সংযোগকারী সেতুতে বিস্ফোরণের জন্য মস্কো ইউক্রেনকে দায়ী করেছে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এই ঘটনাকে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড উল্লেখ করে প্রতিশোধ নিতে ইউক্রেনে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার নির্দেশ দেন বলে জানান। 
তিনি জানান, কিয়েভ তাদের কর্মকাণ্ড দিয়ে নিজেদের সন্ত্রাসীদের কাতারে নিয়ে গেছে। রাশিয়ায় আবার হামলা হলে তার উপযুক্ত জবাব দেওয়া হবে। 

বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, যুদ্ধের প্রথম সপ্তাহের পর থেকে এটি সবচেয়ে ব‌্যাপক হামলা। এই হামলার মাধ‌্যমে যুদ্ধ আরও দীর্ঘস্থায়ী হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। 
এ ঘটনার সমুচিত জবাব দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। তিনি বলেন, বিশ্বের বুক থেকে ইউক্রেনকে মুছে ফেলার চেষ্টা করছে রাশিয়া। 
সোমবার সকালে ব্যস্ত সময়ে কিয়েভের শহরের প্রাণকেন্দ্রে ব্যস্ত সড়ক, পার্ক এবং পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে হামলা চালানো হয়। কিয়েভের পাশাপাশি খারকিভ, লাভিভ, দনিপ্রো এবং জাপোরিসাসহ অন্যান্য ইউক্রেনীয় শহরেও মিসাইল আক্রমণ করা হয়েছে। এতে ধ্বংস হয় বহু অবকাঠামো। অনেক অঞ্চলে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এছাড়া, হামলা হয়েছে কূটনৈতিক অঞ্চলগুলোতেও। সামরিক স্থাপনায়ও ছোড়া হচ্ছে মিসাইল।

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে রাশিয়ার এসব হামলার কড়া সমালোচনা করা হয়।